মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

পাংশা উপজেলার পটভূমি

 

পাংশা নামকরণের মতভেদ রয়েছে৷ ১৮৬৩ সালে পাংশা থানা প্রতিষ্ঠা পায়৷ এক্ষেত্রে পাংশার নামকরণ এর অনেক পূর্বথেকে  প্রচলিত ছিল তা সহজেই অনুমান করা যায়৷ বাংলাদেশ পপুলেশান সেনসাসে এর নামকরণ সম্বন্ধে দুটি মত ব্যক্ত করা হয়েছে৷ পাঞ্জুশাহ নামক একজন ধর্ম প্রচারক সুদূর আরব থেকে এখানে ধর্ম প্রচারের উদ্দেশ্যে আসেন৷ তার সঙ্গী ছিলেন পাঁচ আউলিয়া৷ তাদের নাম পাংশা উপজেলায় রক্ষিত৷ পাঞ্জুশাহ থেকে পানজু থেকে পান এবং শা যোগে নাম হয়েছে পাংশা৷ পাংশা উপজেলার ইতিহাস লেখক শেখ মুহাম্মদ সবুর উদ্দিন এ মতটিই সর্মথন করেছেন৷ তবে পাঞ্জুশাহ বলে অত্র অঞ্চলে যিনি লালনের অনুসারী তাঁর জন্ম ঝিনাইদহের শৈলকূপা থানার হরিশপুরে ১৮৫১ সালে৷ পাঞ্জুশাহের শিষ্য মাতাম শাহ ছিলেন চরম আধ্যাত্মিক শক্তির অধিকারী৷ মাতাম শাহের পাংশা এলাকায় পাঁচটি আস্তানা ছিল বলে জানা যায়৷ বিষয়টি বাংলা একাডেমী কর্তৃক প্রকাশিত পাঞ্জুশাহ পুস্তকে লিখিত আছে৷ পাঞ্জুশাহ সম্বন্ধে এখানে মতভেদ দেখা যায়৷ শেষোক্ত পাঞ্জুশাহ থেকে পাংশার নামকরণ যুক্তিসঙ্গত নয়৷ কারণ তান জন্ম ১৮৫১ সালে আর পাংশা থানা প্রতিষ্ঠিত হয় ১৮৬৩ সালে৷ ধারণা করা যায় পাংশার নাম পাঞ্জুশাহেরও অনেক পূর্বে প্রচলিত ছিল৷ পাঞ্জুশাহ যিনি সুদূর আরব থেকে ষোড়শ শতকে ইসলাম প্রচারের উদ্দেশ্যে এখানে আসেন তারও কোন স্মৃতি চিহ্ন পাওয়া যায় না৷  ষোড়শ শতকের দিকে যিনি পাংশা ধর্ম প্রচারের উদ্দেশ্যে আসেন তিনি হযরত শাহজুঁই৷ তিনি আফগানিস্তান থেকে আগমন করেন৷ পাংশায় তার মাজার শরীফ রয়েছে৷ আলোচনা থেকে ধারণা করা যায় পাঞ্জুশাহের যে পরিচিতি রয়েছে তা আধ্যাত্মিক সাধক পাঞ্জুশাহ যিনি মাতাম শাহের পাঁচ আস্তানার পরিচিততে বিশেষ ভাবে পরিচিত হন৷ এক্ষেত্রে পাঞ্জুশাহের নামে নামকরণ যুক্তি সঙ্গত হয় না৷ অনেকের ধারণা পানশী (ছইওয়ালা বড় নৌকা ) থেকে পাংশার নামকরন হয়েছে৷ পাংশার পার্শ্ব দিয়ে প্রবাহিত চন্দনা একদিন প্রশস্ত ও বেগবান ছিল৷ এঅঞ্চলে চন্দনা নদীর তীরে অনেক নৌকার ভীর জমত৷ এই পানশী থেকে পাংশার নামকরণ হয়েছে৷ মীর মোশাররফ হোসেনের আমার জীবনী গ্রন্থে অত্র অঞ্চলে পানশী নৌকার ব্যবহার এবং পাংশা এর ভীড়ের কথা জানা যায়৷ অধ্যাপক  আব্দর রব মিয়ার চন্দনা/পাংশা থানা সমিতি, ঢাকা, স্মরণিকা ১৯৮২ সংখ্যায় সাঁওতাল কন্যা পানশীর প্রেম ঘটিত বিষয়ে পাংশার নামকরণ হয়েছে তারও ঐতিহাসিক প্রমাণ পাওয়া যায় না৷ তাছাড়া এরকম কোন শ্রুতি পাংশাতে নেই৷ অনেকে মনে করেন পদ্মা ও চন্দনায় প্রচুর পাঙ্গাশ মাছের অধিক্য থেকে এঅঞ্চলের নাম পাংশা হয়েছে৷ এরও তেমন কোন যুক্তি ভিত্তি খুঁজে পাওয়া যায় না৷ এ রকম আলোচনা থেকে পানশী থেকে পাংশা নামের উত্পত্তি অধিক যুুক্তি নির্ভর৷ জন শ্রুতি আছে নবাব সিরাজ উদ্দৌলার পতনের পর নবাব পরিবারের বন্দী সদস্যদের এ পানশী নৌকাতেই এ পাংশা হয়ে জিনজিরা নিয়ে যাওয়া হয়৷ নদীপথে মোঘল শাসনামলে পানশী করেই এ পথে দিল্লি যাতায়াত করত৷ নবাব শায়েস্তা খানের সময় যে ফেরী ফান্ড রাস্তা হয় (ফেলুমেন্টের রাস্ত) তা পাংশা পর্যন্ত বিস্তৃত৷ এই  রাস্ত ধরেই পাংশা নসরত শাহী, মহিমমাহী, বেলগাছি, নলদি ও বিরাহিম  পরগণাভূক্ত ছিল৷